আয়ের একমাত্র উৎস গাড়ী বিক্রি করে ঈদ সমগ্রী বিতরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

নিউজরাজশাহী.কম

প্রকাশিত : ০৬:০৩ পিএম, ১৯ মে ২০২০ মঙ্গলবার

মানুষকে সহায়তা করতে ধনী, শিল্পপতি কিংবা সম্পদশালী হওয়ার প্রয়োজন নেই। ধনী-গরিব, অসচ্ছল মানুষরা পাশে দাঁড়াতে পারে একজন বিবেকবান ব্যত্বিত প্রয়োজন। ঈদে অসহায় কিছু মানুষের মুখে হাসি ফুটলেও অনেক মধ্যবিত্ত কর্মহীন পরিবারে মুখে দেখা যায় দূংখের চিটাফোটা চিহৃ। এই মানুষদের মুখেও হাসি ফোটাতে নিজে থেকে কিছু করার তাগিদ অনুভব করলেন শ্রমিক নেতা আঃ করিম।

কিন্তু এই মহামারী করোনা ভাইরাসে উপায় কি? হাতে নেই নগদ টাকা।

তখন মাথায় আসে তার একটি আয়ের উৎস গাড়ী আছে! তা ১ লক্ষ ১০ হাজার টাকায় গাড়ী বিক্রি করে ৬শ অসহায় পরিবারকে মাঝে ঈদ সমগ্রী বিতরণ করলেন চাঁপােইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার শাহাবাজপুর ইউনিয়নের বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও শ্রমিক নেতা মোঃ আঃ করিম।

১৯ মে (মঙ্গলবার) বিকালে এ সব ঈদ সমগ্রী বিতরণের উদ্বোধন করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ডাঃ মোঃ সামিল উদ্দিন আহমেদ (শিমুল) ৪৩ চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ শিবগঞ্জ আসন। বিশেষ অতিথিহিসাবে ছিলেন মোঃ মাহবুব হাসান (ঋতু) সাধারণ সম্পাদক জাতীয় শ্রমিকলীগ চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখা, মোঃ সেতাউর রহমান সহ-সভাপতি জাতীয় শ্রমিক লীগ সোনামসজিদ স্থলবন্দর শাখা, মোঃ সেরাজুল ইসলাম মাস্টার সভাপতি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ২নং শাহবাজপুর ইউনিয়ন ৩নং ওয়ার্ড শাখা শ্রমিক নেতা আসমাইল, মোঃ খাইরুল বাসার প্রধান শিক্ষক শাহাবাজপুর হাফিজিয়া মাদ্রসা, মোঃ তালেবুর রহমান প্রধান শিক্ষক, শাহরিয়ার আহমেদ সাধারন সম্পাদক ছাত্রলীগ ৩ণং ওয়ার্ড শাখা সহ অনেকে।

প্রধান অতিথি ডাঃ শিমুল এমপি বলেন, প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস ও সারাদেশ লকডাউনের কারণে কর্মহীিন দিনমুজুরা অসহায় হয়ে পড়েছে। কিন্তু বিত্তবান না হওয়া সত্বেও করিম নিজের পণ্যবাহী করিম এন্টারপ্রাইজ এর গাড়ী বিক্রয় করে তাদের পাশে দাঁড়াইছে । এমনো আছে যাদের সাহায্য করার মত সামার্থ আছে তারা নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছে তাই করিম কে অসংখ্য কৃতঙ্গতা জ্ঞাপন করছি এসময় তাদের পাশে দাড়ানোর জন্য।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শ্রমিক নেতা আঃ করিম জানান, গত দুই বছর আগে ১ লাখ ৫০ টাকায় ক্রয় করেন পণ্যবাহী করিম এন্টারপ্রাইজ গাড়ীটি। কিন্তু এ দূর্যোগে সেই গাড়ীটি ১ লক্ষ ১০ হাজারে বিক্রি করে গৃহবন্দি কর্মহীন ৬শ পরিবারকে মাঝে খাদ্য সহায়তায় ব্যয় করি। ইতিপূর্বে ২শ পরিবারকে চাল, ডাল, আলু, তেলসহ নিত্য-প্রয়োজনীয় খাবার প্যাকেট দিয়েছেন তিনি।

এছাড়া প্রধানমত্রী ত্রাণ তোহবিল থেকে গত ১৭ মে ৩০ দুস্থ ও অসহায় পবিরারের মাঝে খাদ্যসমগ্রীি বিতারণ করেন। এছাড়া নিম্নমধ্যবৃত্তদের ও শ্রমিকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন তার স্বেচ্ছাসেবক কর্মীরা। আঃ করিম মনে করেন, জীবনে বেঁচে থাকলে আরও পণ্যবাহী গাড়ী কিনতে পারবেন। কিন্তু এ ধরনের পরিস্থিতিতে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর সুযোগ আর না-ও আসতে পারে। তিনি সমাজের বিত্তবার লোকদেরও অসহায় কর্মহীন মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান।

এদিকে একজন কর্মহীন দীনমুজুর খাইরুল বলেন এমন অবস্থায় করিম ভাই আমাদের সর্বদা খোঁজ খবর নিচ্ছে প্রয়োজনে খাবার দিচ্ছে তার এমন নেতা পেয়ে আমি অনেক খুশি তবে সকল নেতারা যদি এমন হতো তাহলে আমাদের দুঃখ দূর্দসা লাঘোব হতো আমি দুয়া করি যাতে করিম ভাই এমন ভাবে সারাজীবন আমাদের মাঝে বেচেঁ থাকেন।

স/মা