চাটমোহরে ইউএনওর হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ে বন্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক

নিউজরাজশাহী.কম

প্রকাশিত : ০৬:২০ পিএম, ১৮ অক্টোবর ২০১৯ শুক্রবার

মেয়ে সুখী হবে এমন ভাবনা থেকে বাল্য বিয়ের আয়োজন করে পরিবারের লোকজন। কনে নবম শ্রেণীর ছাত্রী। সকালে কাগজের ফুলের মালা দিয়ে সাজানো হয় পুরো বিয়ে বাড়ি। বেশ জোরে শোরে গান বাজছিল সাউন্ড বক্সে। খুব ভোরে গরু জবাই শেষে রান্না করা হয়। দুপুরে আমন্ত্রিত অতিথিদের আপ্যায়নও করা হয়। কিন্তু দুপুর গড়াতেই বিয়ে বাড়িতে শুরু হয় দৌড়াদৌড়ি। মেয়ের বয়স ১৮ না হওয়াই প্রশাসন গিয়ে বন্ধ করে  দেন বিয়ে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে এমনই এক ঘটনা ঘটেছে পাবনার চাটমোহর উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের লাউতিয়া গ্রামে।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার নবম শ্রেণীর ওই স্কুল ছাত্রীর সঙ্গে একই এলাকার এক বিদেশ ফেরৎ যুবকের বিয়ে হচ্ছে। গোপনে এই খবর পেয়ে উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার অসীম কুমার উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা আফছার আলী মন্ডলকে ওই বাড়িতে গিয়ে বিয়ে বন্ধ করতে বলেন। পরে ওই কর্মকর্তা পুলিশ নিয়ে বিয়ে বাড়িতে হাজির হন এবং কনের অভিভাবকদের ডেকে বাল্যবিয়ের কুফল ও আইনী বিষয় নিয়ে কথা বলেন।

এসময় কনের পরিবারের কাছ থেকে প্রাপ্ত বয়স না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দেবে না মর্মে মুচলেকা নেয়া হয়।

আফছার আলী মন্ডল জানান, বাল্যবিয়ে ভেঙ্গে দিয়েছি। অনেক বড় অনুষ্ঠান করেছিল কনের পরিবার। কিন্তু  ইউএনও স্যারের নির্দেশে সময়মতো উপস্থিত হওয়ায় বাল্য বিয়ে বন্ধ করা সম্ভব হয়েছে।