পাবিপ্রবির ব্যতিক্রমি মেহমানদারীতে সন্তুষ্ট শিক্ষার্থী ও অভিভাবক

নিজস্ব প্রতিবেদক

নিউজরাজশাহী.কম

প্রকাশিত : ১১:৫৪ এএম, ১৬ নভেম্বর ২০১৯ শনিবার

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ শিক্ষা বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা গতকাল শুক্রবার সুষ্ঠ ভাবে সম্পন্ন হয়েছে। চলতি বছর ২৫ হাজার ৭০৫জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে। বিশ্ববিদ্যালয় মূল ক্যাম্পাস ছাড়াও শহরের ১৫ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পরীক্ষা কেন্দ্রে এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। দুই দফায় এ ও বি ইউনিটের পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়। সকাল ১০ টা থেকে ১২:৩০ মিঃ পর্যন্ত ইউনিটের পরিক্ষা ও বিকেল ৩টা মিঃ থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত বি ইউনিটের পরিক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

এ ইউনিটে ৫১৫টি আসনের জন্য পরিক্ষায় অংশ নেয় ১৩,৬৭৩জন ও বি ইউনিটের ৪০৫টি আসনের জন্য পরিক্ষা অংশ নেয় ১২,০৩২জন পরীক্ষার্থী। প্রতিটি আসনের জন্য তিনজন করে পরীক্ষার্থী অংশ নিয়েছে এবারের ভর্তি পরীক্ষায়। 

ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের জন্য জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদের উদ্যোগে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন, জেলা প্রশাসন, পুলিশ সুপার, পাবনা চেম্বার অব কমার্স, জেলা যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ সামাজিক এবং রাজনৈতিক সংগঠনের নেতাকর্মী ব্যক্তি উদ্যেগে আবাসন ও খাওয়ার ব্যবস্থা করেন। বৃহস্পতিবার রাতের খাবার ও শুক্রবার সকালের নাস্তা সরবরাহ করা হয় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের।

জেলা প্রশাসন সুত্র জানায়, ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষে আগত সকলের জন্য থাকা ও খাওয়ার জন্য শহরের পরীক্ষা কেন্দ্রের কাছাকাছি ৪১ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ব্যবহার করা হয়। এছাড়া শহরের বাস টারমিনাল এলাকা, রেলওয়ে স্টেশনসহ শহরের গুরুত্বপূর্ন স্থানে বিলবোর্ড ও তথ্য কেন্দ্র স্থাপন করে পরীক্ষার্থীদের সহযোগিতা করে প্রশাসন। এবারের অনুষ্ঠিত পরীক্ষায় পাবনাবাসীর ব্যতিক্রমী এ ব্যবস্থাপনা নিয়ে  খুশি অভিভাবক ও পরীক্ষার্থীরা।

সিরাজগঞ্জ শহরের আবুল হোসেন জানান, পাবনায় আমার কোন নিকট আত্মীয় স্বজনের বাড়ী না থাকায় পরীক্ষার সময় কোথায় থাকব তা নিয়ে খুব চিন্তায় ছিলাম। তবে, বৃহস্পতিবার বিকেলে পাবনায় এসেই আমার সব দুশ্চিন্তা দূর হয়ে যায় । জেলা স্কুল কেন্দ্রে আমার পরীক্ষা ছিল। একটি তথ্যকেন্দ্রে কথা বলতেই স্বেচ্ছাসেবক ভাইয়েরা  সব দায়িত্ব নিজেরাই নিলেন। পুলিশ লাইনের অডিটোরিয়ামে বিনামূল্যে থাকা ও খাওয়ার ব্যবস্থা ছিল। কোন দূর্ভোগ ছাড়াই পরীক্ষা দিয়েছি ।

কুমিল্লার চান্দিনার পরীক্ষার্থী সামিয়া জামান পাবনা জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, পাবনা পুলিশ লাইন স্কুলে এত সুন্দর ও নিরাপত্তার মধ্যে আমি আমার মাকে নিয়ে রাত যাপন করেছে তা কল্পনার অতীত। খুব সুন্দর ভাবে পরীক্ষা দিতে পেরেছি। আশা করছি ফলাফল ভাল হবে।

পাবনার জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ জানান , পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার জন্য আগত প্রায় ২০ হাজার শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের জন্য শহরের ৪৭ টি স্থানে আবাসন ও খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। সবার সহযোগিতায় অত্যন্ত সুশৃংখল ভাবে পাবনাবাসী তাদের আপ্যায়ন ও আতিথেয়তা দিয়েছে। সামান্য সদিচ্ছা থাকলেই যে বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষায় পরীক্ষার্থীদের দুর্ভোগ লাঘব করা যায়, এ আয়োজন তার দৃষ্টান্ত হতে পারে।