পুঠিয়ায় মাদকসেবনের দায়ে ভূমি অফিসের পিয়নের কারাদন্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক

নিউজরাজশাহী.কম

প্রকাশিত : ০৬:৫৭ পিএম, ২ মার্চ ২০২০ সোমবার | আপডেট: ০৭:০০ পিএম, ২ মার্চ ২০২০ সোমবার

ইয়াবা সেবনের অভিযোগে রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলা ভূমি অফিসের পিয়নকে ৬ মাসের কারাদন্ড দিয়েছেন পুঠিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ওলিউজ্জামান।

কাউসার আলী রাজশাহীর পবা উপজেলার এয়ারপোর্ট থানার মৃত. মজিবুর রহমানের পুত্র। তবে কাউসারের পরিবার বিষয়টিকে সাজানো উল্লেখ করে জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত আবেদন করে তার ডোপ টেস্টের দাবি করেছে।

সোমবার বিকেলে পুঠিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ওলিউজ্জামান জানান, গত শনিবার পুঠিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বাংলোর পেছনে ইয়াবা সেবন করছিলো পুঠিয়ার ভূমি অফিসের পিয়ন কাউসার আলী (৩৫)। পরে বিষয়টি তিনিসহ আরো কয়েকজন দেখতে পেয়ে তার শরীর তল্লাসী করে ১০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করেন।

এরপর দোষ স্বীকার করলে কাউসার আলীকে ৬মাসের কারাদন্ড দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়। তিনি আরো জানান, মাদকসেবন ছাড়াও কাউসার আলীর আরো কিছু সমস্যা রয়েছে। এদিকে ন্যায় বিচার পাবার স্বার্থে জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত আবেদন করেছেন কাউসার আলীর মা নুরুন নাহার।

তিনি তার আবেদনে দাবি করেছেন, কাউসার আলী ১০ বছর ধরে শিলমাড়িয়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসের পিয়ন পদে চাকরি করেন। হঠাৎ করে গত শুক্রবার পুঠিয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি রুমানা আফরোজের সঙ্গে তার কথা কাটাকাটি হয়। পরে তাকে শনিবার ইউএনও অফিসে দেখা করার জন্য বলা হয়।

দেখা করতে গেলে তাকে মাদক আইনে জেল দিয়ে দেয়া হয়। কাউসার আলীর মা মানবিক কারণে কাউসার আলীর ডোপ টেস্ট করে পরীক্ষার মাধ্যমে সঠিক বিচার এবং চাকরিতে বহাল রাখার আবেদন করেন জেলা প্রশাসকের কাছে। কাউসার আলী স্ত্রী সাদিয়া আফরিন দাবি করেন তার স্বামী সিগারেটও খায়না।

ইয়াবা সেবনের অভিযোগ সত্য নয়। ছুটির দিন হওয়ার পরও বাড়ী থেকে ডেকে নিয়ে জেল দেয়া হয়েছে। এব্যাপারে পুঠিয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি রুমানা আফরোজকে ফোন করা হলে তিনি বলেন, তার অপরাধ অনুযায়ী ইউএনও স্যার তাকে সাজা দিয়েছেন।

এখন জেলা প্রশাসককে অভিযোগ দিয়েছেন। জেলা প্রশাসক তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবেন। এব্যাপারে জেলা প্রশাসক হামিদুল হককে ফোন করা হলে তিনি ফোন ধরেননি বলে বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

স/র