রাজশাহীর বাজারে অস্বাভাবিক হারে বাড়ছে পেঁয়াজের দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক

নিউজরাজশাহী.কম

প্রকাশিত : ১২:২৯ পিএম, ১৬ নভেম্বর ২০১৯ শনিবার

পেঁয়াজ নিয়ে এক ধরনে সিন্ডিকেট নানা টালবাহানা করে দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। এ নিয়ে সরকারের প্রথানমন্ত্রী বিভিন্ন সময় পেঁয়াজের দাম কমানোর  কথা বলে এসেছেন। পাশাপাশি সরকারের উচ্চ পর্যায়ের নেতারাও কাজ করে যাচ্ছেন। সরকার বাইরে থেকে আমদানিও করছেন। এরপরও কমছে না পেঁয়াজের দাম। অসাধু সিন্ডিকেটের সঙ্গে পাল্ল দিয়ে রাজশাহীতেও বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। 

রাজশাহী শহরের বিভিন্ন ফলের দোকান ঘুরে দেখা যায়, নাসপাতি প্রতিকেজি ২শ’ টাকা, লাল আপেল প্রতিকেজি ১২০-১৪০ টাকা, কমলা আকার ভেদে ১৪০ থেকে ১৫৭ টাকা, মাল্টা দেশী ১০০-১২০টাকা, বিদেশী মাল্টা ১৯০-২০০টাকা কেজি এবং পেয়ারা প্রতিকেজি ৬০-৮০ টাকা দড়ে বিক্রি হলেও শুক্রবার সকাল থেকে প্রতিকেজি পেয়াজ রাজশাহীর বাজারে বিক্রি হয় ২৬০ টাকা কেজি।

পিঁয়াজ মসলা জাতীয় খবার হলেও রাজশাহীর বাজারে বর্তমানে বিদেশী ফলের থেকেও বেশিদামে পিঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। কোনো ধরনের নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে পেঁয়াজের দাম। আর সাধারণ ক্রেতারা এ ক্ষেত্রে অনেকটাই অসহায়। রাজশাহীর বিভিন্ন সবজি দোকানে বৃহস্পতিবার প্রতিকেজি পিঁয়াজ ১৮০-২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হলেও রাতের ব্যবধানে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৬০টাকায়।

বছরের অন্য সময় গুলোতে দোকানে বস্তায় বস্তায় করে পিঁয়াজ মজুদ করে রাখলেও এখন অল্প করে কিছু পিঁয়াজ সাজিতে প্রদর্শন করে রেখেছে। তবে পিঁয়াজ নেই এবং পাওয়া যাচ্ছে না এমনটি দেখা যায়নি। দোকানদাররা এখন পিঁয়াজ কেজিতে বলছেন না। তারা পিঁয়াজের দাম জিজ্ঞাসা করলে তারা বলছেন পিঁয়াজ ২৬ টাকা শো’। 

এদিকে পিঁয়াজের মোকাম থেকে কি দরে কেনা হচ্ছে এবং কি দামে পাইকারী ব্যবসায়ীরা খুচড়া ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করছে তা নিয়ে ধোঁয়াশা কাজ করছে।

তবে বাজার নিয়ন্ত্রনে তদারকি চলছে এবং দ্রুতই দাম কমবে বলে জানিয়েছেনভোক্তা অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তরের।