সম্পর্কের এফোঁড়-ওফোঁড়

সুপ্রিয় পাল শুভ

নিউজরাজশাহী.কম

প্রকাশিত : ০৯:০১ পিএম, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ রবিবার

সুপ্রিয় পাল শুভ।

সুপ্রিয় পাল শুভ।

বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক এখন অনেক বেশি দেখা যাচ্ছে। বলা যায় ক্রমে তা বাড়ছে। কিন্তু এমন না যে এসব আগে থেকে ছিলো না। ছিলো, আমরা ঠিক মত জানতে পারতাম না। সামাজিক ট্যাবুর জন্য বেশির ভাগই প্রকাশ্যে আসত না। ১৯৯০ এর দশক থেকে ধীরে ধীরে কিছু এরকম খবর প্রকাশ্যে আসতে থাকে। কিন্তু ডিজিটাল যুগে প্রবেশের পর পর ই এসব নিউজ যেন ভাইরাল হওয়া শুরু হয়ে যায়।

প্রযুক্তির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আর কি! প্রযুক্তিবিহীন যুগে কেউ জানতে পারতনা, আর এখন প্রযুক্তির কল্যাণে বেড রুমের স্ক্যান্ডাল পর্যন্ত সবার হাতে হাতে। তো সে যাই হোক, এরকম ই অপ্রকাশিত একটি ঘটনা বলব, যেটা অপ্রত্যাশিত ভাবেই আমার পর্যন্ত এসেছে। ঘটনা টি শেয়ার করার আগে অনেকবার ভেবে দেখলাম যে এটা ফেসবুক এ দেয়া ঠিক হবে কি না! পরে সিদ্ধান্ত নিলাম সবার জানা উচিত। এখানে ছদ্ম বা কাল্পনিক নাম ব্যবহৃত হয়েছে।

আমি ২০১৮ সালের রোজার ঈদ এর পরের দিন আমাদের হাসপাতালের গাইনি বিভাগে আমি ডিউটি করছিলাম , ইন্টার্ন ডাক্তার কম ছিলো বিধায়। বিকাল ৪ টার সময় তেমন ভিড় ছিলনা ,ফাকা বসে ছিলাম। একজন মহিলা আসলেন স্বামী ও তার মেয়ে সহ। আমি সাথে সাথে রোগীর হিস্ট্রি নেয়া শুরু করে দিলাম। নাম মিসেস আক্তারবানু বয়স ৩৭, পেশায় একটি বেসরকারী কোম্পানীর কর্মচারী। তার সমস্যা হলো যে তার বেলা ২ টার দিকে অল্প একটু ব্লিডিং হইছে মসিকের রাস্তা দিয়ে এবংসাথে প্রচন্ড ব্যাথা। গর্ভপাত ঘটানোর ওষুধ খাওয়ার হিস্ট্রি দিলেন না। শেষ মাসিক ২ মাস আগে হইছে, রেগুলার হত এবং Menerche ১২ বছর এ। ১৮ বছর ধরে বিবাহিত, শেষ বাচ্চার বয়স ৮ বছর। আগের স্বামীর সাথে ডিভোর্স হয়েছে দেড় বছরের মতন। নতুন বিয়ে হয়েছে ২০১৭ এর নভেম্বর এ। ৪ টা বাচ্চা, ২ টা গর্ভপাত এর হিস্ট্রি দিলেন। বর্তমান স্বামী তার অফিসের কলিগ। আমি হিস্ট্রি কমপ্লিট করলে আমাদের সেদিন এর C.A ডাঃ ফরিদা ম্যাম এলেন এবং PVE করে OS open পেলেন। সব শুনে ডায়াগ্নোসিস করলেন Incomplete Abortion (যদিও তিনি কিন্তু স্বীকার করেন নি কোন ওষূধ খাওয়ার কথা)।

এরপর ম্যাম তাকে আংশিক গর্ভপাত এর ট্রিট্মেন্ট দিয়ে তাকে বেড নিতে পাঠায়ে দিলেন। বলে রাখা ভালো, আমি তখন ব্লক পোস্টিং এ ছিলাম এবং একজন স্টুডেন্ট জন্য আমি ডায়াগ্নোসিস আর PVE করিনি। রাত ৯টার সময় আমি ম্যাম এর সাথে রাউন্ড করে ফিরছিলাম এডমিশন রুম এ। তখন মিসেস আক্তার বানু ডেকে কিছু কথা বলতে চাইলেন। আমি সায় দিলাম। এরপর তিনি তার কাহিনী শুরু করলেন। তার ৪বাচ্চার ২মেয়ে, ২ ছেলে।

বড় মেয়ে তার সাথে এসেছিলেন, এখন বাবার সাথে বাহিরে বসে অপেক্ষা করতেছে। আর ছোট ছেলের বয়স ৮ বছর। তার আগের স্বামীর সাথে ডিভোর্স হয়েছে দেড় বছর এর মত। কারণ তার বর্তমান স্বামীর সাথে তার পরিচয় প্রায় ৩ বছর ধরে, আর তার আগের স্বামী এটা মেনে নিতে পারেন নাই। তার স্বামীও আরেক মহিলার সাথে তার ও আগে থেকে পরকীয়া করেন জানার পর তিনি অনেক বার তাকে বাধা দিয়েছেন, যখন পারেন নি শোধরাতে, তখন তিনিও এই বর্তমান স্বামীর এর সাথে পরকীয়াতে জড়িয়ে পড়েন। ডিভোর্সের পর তার আগের স্বামী সেই মহিলা কে বিয়ে করে ফেলেন, আর এই স্বামীকে বিয়ে করেন রোগী। এই বর্তমান স্বামীও ডিভোর্সি পুরুষ। আগে ২ বিয়ে করেছিলেন! রোহী এইবার তিনি আমার কাছে গোপনে স্বীকার করলেন যে তিনি এম.এম কিট নামক গর্ভপাত এর ট্যাবলেট খেয়েছেন সকাল এ। এটা তার স্বামী মেয়ের সামনে বলতে চাননি। কেন?

জানতে চাইলে আরো অবাক করা কথা বললেন। এই গর্ভপাত এর কারণ তার আগের স্বামী! মহিলা প্রায় ৫ মাস ধরে আগের স্বামীর সাথে মেলামেশা করেন যেটা তার বর্তমান স্বামী জানেনা। তারই ফল স্বরুপ ২ মাস আগে তাদের মেলামেশার কারনে তিনি গর্ভবতী হন। এরপরে তার বর্তমান স্বামীর সাথেও মেলামেশা করেছেন, কিন্তু গর্ভের কারণ যে আগের স্বামী সেটা মাসিক বন্ধ হয়ে বুঝেছেন কিন্তু প্রকাশ করেন নি। তার বর্তমান স্বামী ভেবেছে তার এই গর্ভের বাচ্চা টা তার, কিন্তু মহিলা রাখতে চাননা কেন এ নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়েছে। তার বর্তমান স্বামী তার আগের ৪ বাচ্চার দায়িত্ব নিয়েছেন ভালোমতই, কিন্তু তিনিও তার একটা পরিচয় চান এই নতুন সম্পর্কে। তাই গর্ভপাত এ সে রাজী ছিলেন না। মহিলা এজন্য লুকিয়ে ওষুধ কিনে খেয়ে ফেলেছেন। কারন তিনি চাননি তার এই স্বামী জানতে পারুক যে এই বাচ্চা তার আগের স্বামীর সাথে মেলামেশার ফল।

আবার তার এই স্বামী তাদের একটি বাচ্চা চাচ্ছেন। মহিলা চাচ্ছেন না এই ৩৭ বছরে এসে নতুন করে বাচ্চা নিতে। এতকিছু বলার পর তার আবদার, আমি যেন তার বর্তমান স্বামীকে বুঝিয়ে বলি যে তার বউ এখন বাচ্চা নিলে অসুস্থ হয়ে যাবে, সমস্যা হবে অনেক। তাই বাচ্চা যেন আর না নেন। সব শুনে আমি তাকে জানিয়ে আসি যে আমি আমার ম্যাম কে বলে দিব যেন বুঝিয়ে দেন স্বামী কে। এতে তার স্বামী এসব কথা জানতে পারবেনা আস্বস্ত করে চলে আসি। এই হলো আমাদের বর্তমান প্রেক্ষাপট। বিয়ের আগেও পরকীয়া, বিয়ের পরেও! এই ঘটনা কে আপনারা কি নাম দিতে চান?

লেখক: শীক্ষার্থী, ৫ম বর্ষ, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ।