সেশনজটে চারুকলার গ্রাজুয়েটদের সমাবর্তনের স্বপ্নভঙ্গ

নিজস্ব প্রতিবেদক

নিউজরাজশাহী.কম

প্রকাশিত : ০৬:৩৯ পিএম, ৩০ নভেম্বর ২০১৯ শনিবার

রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদের সভাপতিত্বে শনিবার (৩০ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে ৩টায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) একাদশ সমাবর্তন শুরু হয়েছে। তবে সেশনজটের কারণে সমাবর্তনে অংশ নিতে পারছে না চারুকলা অনুষদের ২০১১-১২ সেশনের শিক্ষার্থীরা।

সমাবর্তনের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী- ২০১৫-১৬ সালে স্নাতকোত্তর, পিএইচডি ও এমফিল ডিগ্রিধারীরা চলতি বছরের ৫ সেপ্টেম্বর থেকে ১৪ সেপ্টেম্বরের মধ্যে নিবন্ধনের সুযোগ পেয়েছেন। 

জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল বিভাগের ২০১১-১২ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্সের চূড়ান্ত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল ২০১৬ সালে। তবে সেশন জটের কারণে চারুকলা অনুষদে তিন বছর পর ২০১৯ সালে তা অনুষ্ঠিত হয় এবং এখন পর্যন্ত ফলাফল প্রকাশ হয়নি। ফলে একই ব্যাচের অন্য বিভাগের শিক্ষার্থীরা দশম সমাবর্তনে অংশ নিলেও দশম এবং একাদশ সমাবর্তনের কোনোটিতেই অংশ নিতে পারেননি চারুকলার এসব শিক্ষার্থীরা।

চারুকলা অনুষদ সূত্রে জানায়, ২০১১-১২ সেশনের মাস্টার্সের চূড়ান্ত পরীক্ষা শেষ হয় চলতি বছরের আগস্ট মাসে। তবে নন-থিসিস শিক্ষার্থীদের ফল প্রকাশিত হলেও থিসিসকারীরা পরীক্ষা-পরবর্তী তিন মাস পর থিসিস জমা দিলে এখনো ফল প্রকাশ হয়নি।

২০১১-১২ সেশনের এক শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করে জানান, দশম সমাবর্তনে সেশনজটের কারণে আমরা অংশগ্রহণ করতে পারি নি। একাদশ সমাবর্তনেও আমরা সেই সুযোগ থেকে বঞ্চিত। পরবর্তী কোনো সমাবর্তনে অংশ নিতে পারবো কিনা তাও জানি না। বিষয়টি লিখিতভাবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে জানিয়েছি।

জানতে চাইলে চারুকলা অনুষদের মৃৎশিল্প ও ভাষ্কর্য বিভাগের অধ্যাপক মোস্তফা শরীফ আনোয়ার বলেন, ২০১৬ সালে যাদের চূড়ান্ত পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল কিন্তু তাদের ক্লাসই শুরু হয়েছে দুই বছর পর। এ বছর তাদের চূড়ান্ত পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু এখনো থিথিস জমা দেয়নি।

রাবির ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক লায়লা আরজুমান বানু বলেন, তাদের এখনো ফলাফল প্রকাশ হয়নি। ফলাফল প্রকাশ না হলে তো সমাবর্তনে অংশ নিতে পারবে না। তবে চারুকলা অনুষদের ডীন ও শিক্ষকদের সাথে প্রশাসনের কথা হয়েছে। তারা খুব দ্রুত সেশনজট নিরসন করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন।