Advertisement

৩০ বছর পর রাবির এসএম হলের বন্ধ গ্রন্থাগার চালু

নিজস্ব প্রতিবেদক

নিউজরাজশাহী.কম

প্রকাশিত : ০৬:০৮ পিএম, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯ মঙ্গলবার

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শাহ্ মখদুম (এসএম) হল প্রাধ্যক্ষের উদ্যোগে হলটিতে ৩০ বছর বন্ধ থাকা গ্রন্থাগার চালু হয়েছে। পূর্বে জরাজীর্ন অবস্থায় থাকলেও বর্তমান হল প্রাধ্যক্ষ আরিফুর রহমান দায়িত্ব গ্রহনের এক বছরেই নানামুখি সংস্কারে হলটি নতুন রূপ পরিগ্রহ করেছে।

গ্রন্থাগার চালু হওয়ায় অনেক দু:ষ্প্রাপ্য বইয়ের জ্ঞান আহরণ করতে পারবে শিক্ষার্থীরা। ভবিষ্যতে গ্রন্থাগারে শিক্ষার্থীদের ক্যারিয়ার বিষয়ক বই সংযোজনের পরিকল্পনা আছে। তাছাড়া, হলের মনোরম রিডিং রুম, সর্বোচ্চ গতির ইন্টারনেট সংযোগ, প্রাধ্যক্ষের বাস ভবন সংস্কার, অতিথি কক্ষের সংস্কার, শহীদ ফারুক হোসেন অডিটোরিয়ামের মঞ্চের আধুনিকায়ন, খাবারের মান পর্যবেক্ষন ও সুষ্ঠু সিট বণ্টনের মাধ্যমে হলকে শিক্ষার্থীদের পরিবেশ বান্ধব করেছেন প্রাধ্যক্ষ।

হলের আবাসিক শিক্ষার্থী আরিফ বিন জহির বলেন, ‌‌‌’পূর্বে ছাত্রদের জন্য কোনো রিডিং রুম এবং হল লাইব্রেরিটি বন্ধ থাকায় আমাদের নানা বিড়ম্বনায় পড়তে হতো। পড়াশুনায় বিঘ্ন ঘটতো। আরিফ স্যার প্রাধ্যক্ষ হওয়ার পর হলের অভূতপূর্ব উন্নয়ন করছেন। তিনি হলের আবাসিক শিক্ষার্থীদের নিয়ে মতবিনিময় করে হলের সমস্যাগুলো চিহ্নিত করেছেন। এরই ধারাবাহিকতায় সুচারুভাবে সকল সমস্যাগুলো সমাধান করেন।’

আরেক আবাসিক শিক্ষার্থী নাজমুস সাকিব বলেন, ‘ইন্টারনেট সেবার ব্যাপারে বরাবরই আমাদের অভিযোগ ছিলো। পরে বিষয়টি প্রাধ্যক্ষ স্যারের দৃষ্টিতে আসলে হলের অভ্যন্তরে ১২ টি শক্তিশালী ওয়াই-ফাই টাওয়ার স্থাপন করেন। এতে করে আগের তুলনায় ইন্টারনেট সেবা অনেক বেশি উন্নত হয়েছে।’

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, হলের সম্মুখ ভাগে পূর্ব- পশ্চিম বরাবর সৌন্দর্য বর্ধনের নিমিত্তে নতুন করে বাগানকে ঢেলে সাজানো হয়েছে। হল প্রাধ্যক্ষের বাস ভবনকেও নান্দনিকভাবে সাজিয়ে বসবাস উপযোগি করা, শহীদ ফারুক হোসেন অডিটোরিয়ামের সংস্কারের কাজে মঞ্চের আধুনিকায়ন, সাউন্ড সিস্টেমসহ আনুষঙ্গিক কাজ চলমান, ছাত্রদের সার্বিক নিরাপত্তার স্বার্থে সিসি ক্যামেরা স্থাপনসহ সার্চ লাইট স্থাপন করেছেন বর্তমান প্রাধ্যক্ষ।

রুমে রুমে গিয়ে ছাত্রদের সুবিধা- অসুবিধার খোঁজ-খবর নেন বলে জানান শিক্ষার্থীরা। বিষয়টিকেও ইতিবাচকভাবে দেখছেন তারা। এই প্রাধ্যক্ষের নানামুখী পদক্ষেপে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে রীতিমতো ইতিবাচক পোষ্ট করছেন শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের ক্যারিয়ার ও হল সংস্কারের সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাধ্যক্ষ ড. আরিফুর রহমান বলেন, ছাত্রদের সুবিধার্থে শাহ্ মখদুম হল প্রশাসন নানামুখী পদক্ষেপ হাতে নিয়েছে। লাইব্রেরি খুলে দেয়ার সাথে সাথে বেশ কয়েক বছর বন্ধ থাকা অন্ত:কক্ষ ক্রীড়া প্রতিযোগিতা চালু করা হয়েছে। একারনে দীর্ঘদিন পর শাহ মখদুম হল আন্ত:কলেজ (এ্যাথলেটিক্স) প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছি। এছাড়াও আন্ত:কলেজ ওয়টারপলো ও সাঁতারে ২য় রানার আপ অর্জন করেছি।

তিনি আরও বলেন, ইতোমধ্য প্রথম বারের মতো সৃজনী নামে হল সাময়িকী প্রকাশ পেতে যাচ্ছে। হলে সর্বোচ্চ রেজাল্টধারি শিক্ষার্থীদের জন্য স্বর্ণপদক চালু, সাহিত্য- সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা এবং হল ডিবেটিং সোসাইটি প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা রয়েছে বলেন জানান তিনি।

হল প্রশাসন জানান, ডাইনিং এবং ক্যান্টিন এর মধ্যে পার্টিশন দেয়াল তৈরি করা হবে, হল মসজিদের প্রয়োজনীয় সংস্কার, ছাত্রদের প্রয়োজনে আরো একটি রিডিং রুম তৈরি, কমনরুমের জন্য আধুনিক মানের প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি ক্রয় এবং সংস্কার, ক্রীড়া ক্ষেত্রে বিশেষ প্রণোদনা হল প্রশাসনের পক্ষ থেকে গৃহীত হবে। সেই সাথে হলের সকল বাথরুমে টাইলস স্থাপনসহ প্রয়োজনীয় সংস্কার, হলের জানালা-দরজাসহ হলের বহিরাংশ রংকরণ করে নতুন রূপে ঢেলে সাজানোসহ পড়াশুনা ও বসবাসের সঠিক পরিবেশ বজায় রাখার ব্যাপারে সর্বদা তৎপর শাহ্ মখদুম হল প্রশাসন।

হলের সিট বন্টনের ব্যাপারে জানতে চাইলে প্রাধ্যক্ষ আরিফুর রহমান বলেন, ‘আমি হলের দায়িত্বে আসার পর ছাত্রদের মেধার ভিত্তিতে, আর্থিক অসচ্ছ্বলতা এবং প্রতিবন্ধী ছাত্রদের বিবেচনাসহ অত্যন্ত সুষ্ঠুভাবে সিট বন্টন করে আসছি। ভবিষ্যতেও এর ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে। ডাইনিং ও ক্যান্টিনের খাবার মান উন্নতকরণে প্রতিনিয়ত পর্যবেক্ষণ করা হয় এজন্য খাবারের মানে বিশ্ববিদ্যালয় শাহ্ মখদুম হল বরাবরই সেরা বলেও জানান তিনি।’