উচ্ছেদ অভিযানে দখলমুক্ত তানোরের গোল্লাপাড়া হাট

নিজস্ব প্রতিবেদক, তানোর

নিউজরাজশাহী.কম

প্রকাশিত : ০৭:৫৯ পিএম, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ মঙ্গলবার | আপডেট: ০৮:০২ পিএম, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ মঙ্গলবার

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

রাজশাহীর তানোর পৌরশহরের গোল্লাপাড়াহাট থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। এই হাটের দখল করে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করছিলেন শতাধিক দোকানি ও হকার। বিগত দু’দিন ধরে উপজেলা প্রশাসন এ উচ্ছেদ অভিযান চালায়।

অভিযানে নেতৃত্ব দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুশান্ত কুমার মাহাতো।

এ সময় উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) স্বীকৃতি প্রামাণিক, তানোর থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) রাকিবুল হাসানসহ অন্যান্য ভূমি কর্মকর্তা ও বণিক সমিতির নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন। আর হাটের অবৈধভাবে নির্মাণ করা দোকানঘর উচ্ছেদের ঘটনায় ইউএনও সুশান্ত কুমার মাহাতোর সৎ সাহসিকতাকে সাধুবাদ জানিয়েছেন তানোরের সচেতন মহল।

উপজেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, উপজেলা সদরের গোল্লাপাড়া হাটের সরকারী জায়গায় ব্গিত ৮-১০ বছর থেকে এলোমেলো ভাবে ব্যবসায়ীরা নিজেদের ইচ্ছেমত দোকান ঘর নির্মাণ করেন। এই হাটে ১৬৯ জন প্রকৃত ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের মাঝে ঘর বরাদ্ধ দেওয়া যাবে। তবে এরমধ্যে মাত্র ৬৭ জন ব্যবসায়ী হাটের নকশা অনুযায়ী যথাযথ আইন অনুসরণ করে ঘর বন্দোবস্ত নিয়ে ব্যবসা করছেন।

এ অবস্থায় বাজারের সৌর্ন্দয্য ফিরিয়ে আনতে অবৈধ দোকান ঘরগুলো উচ্ছেদের অভিযান চালান উপজেলা প্রশাসন। ফলে দখলদার দোকানীরা নিজে থেকেই তাদের দোকান ঘর ভেঙ্গে নিতে থাকেন। আর এই উচ্ছেদ অভিযানের আগে কয়েক দফা স্থানীয় বণিক সমিতির নেতৃবৃন্দের সঙ্গেও মতবিনিময় করেন ইউএনও সুশান্ত।

উচ্ছেদ অভিযানের পর ইউএনও’র সৎ সাহসিকতাকে সাধুবাদ জানিয়েছেন গোল্লপাড়া হাটের বণিক সমিতির সভাপতি সারোয়ার জাহান ও সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম।

বণিক সমিতির নেতৃবৃন্দরা বলেন, হাটের সৌর্ন্দয্য ফিরিয়ে আনতে ইউএনও মহাদয় নিঃসন্দেহে ভালো পদক্ষেপ নিয়েছেন। ইর্তিপূর্বে যে ভাবে সরকারী নিয়মে ব্যবসায়ীদের লীজ দিয়ে বাজারের এক পাশে সুন্দর ভাবে মার্কেট তৈরি হয়েছে। একইভাবে বাঁকি অন্য পাশেও দ্রুত মার্কেট তৈরি হোক।

তবে তাঁরা আক্ষেপ করে বলেন, গোল্লাপাড়া হাটের হাতেগনা কয়েকজন ব্যক্তি আছেন, যারা আজগুবি কথা বার্তা বলে অন্য ব্যবসায়ীদের উস্কিয়ে দিয়ে বাজারের সুন্দর পরিবেশকে ভিন্ন খাতে নেওয়ার চেষ্টা করছে। একই সঙ্গে ওই শ্রেণীর (দালাল প্রকৃতির লোক) বিভিন্ন সংবাদকর্মীদের মিথ্যা তথ্য দিয়ে প্রশাসনকে ভুল বুঝাচ্ছে ও প্রকৃত ব্যবসায়ীদের ক্ষতি করার চেষ্টা করছে। আমরা বণিক সমিতির লোকজন ইউএনও স্যারের সঙ্গে কথা বলে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্থ বণিকদের নিজ নিজ নামে দ্রুত দোকানঘর লীজের ব্যবস্থা করবো।

এ বিষয়ে উপজেলা নিবার্হী অফিসার (ইউএনও) সুশান্ত কুমার মাহাতো এই প্রতিবেদককে বলেন, সরকারী নিয়ম মেনে তানোর সদরের গোল্লাপাড়া হাটের এক পাশের অবৈধ দোকানপাট সরিয়ে নিতে বলা হয়েছে। অবৈধ দোকানীরা নিজ নিজ দোকান সরিয়ে নিচ্ছেন।

ইউএনও আরও বলেন, আমি চাই সরকারী নিয়ম মেনে তানোর উপজেলার সকল স্থানের হাট-বাজারের ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসা পরিচালনা করবেন। তাই গোল্লাপাড়া হাটের বণিক সমিতির নেতাদের বলেছি, দ্রুত ক্ষতিগ্রস্থ প্রকৃত ব্যবসায়ীদের তালিকা করে আবেদন জমা দিতে। নির্ভেজাল আবেদন পেলে দ্রুত ব্যবসায়ীদের মাঝে ঘর বন্দোবস্ত দেওয়ার সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

স/এমএস