নানান দুর্নীতি ও চিকিৎসাহীনতায় চলছে দুর্গাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

শাহীন আলম, দুর্গাপুর

নিউজরাজশাহী.কম

প্রকাশিত : ০৮:৫৬ পিএম, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২০ শনিবার | আপডেট: ১০:১৫ পিএম, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২০ শনিবার

রাজশাহী দুর্গাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১ বছরেই ঘটেছে ব্যাপক পরিবর্তন। এ পরিবর্তন উন্নয়ন এর না। বর্তমানে পূর্বের সকল দুর্নীতির রেকর্ডকে ছাড়িয়ে গেছে।

এই হাসপাতাল নিয়ে সাধারণ মানুষের অভিযোগ শেষ নেই, দুর্নীতি গ্রস্ত টিএইচও তার ক্ষমতা বলে এখনও টিকে আছেন। এমতাবস্থায় সাধারণ মানুষের মাঝে দেখা দিয়েছে তীব্র ক্ষোভ।

হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা আমিনুল অভিযোগ করে বলেন, আমিসহ আরো কয়েকজন বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা নিতে এসেছিলাম। কিন্তু আমরা ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে পাইনি কাঙ্ক্ষিত চিকিৎসা সেবা। আমাদের সবাইকে দেওয়া হয়েছে প্যারাসিটামল ও হিস্টাসিন এবং তারা বলেন হাসপাতাল যদি এইভাবে চলে তাহলে আমরা গরীব অসহায়রা কোথায় গিয়ে চিকিৎসা নিব?

সচেতন মহলের কিছু ব্যক্তিগণ জানান, দুর্গাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা সেবার মান আগে অনেক ভাল ছিল, কিন্তু গত এক বছরেই ভেঙ্গে গেছে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এর চিকিৎসা সেবার মান। তারা আরো বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী স্বাস্থ্যখাতকে উন্নত করার লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছে কিন্তু কিছু অসাধু অর্থলোভী ব্যক্তিদের জন্য অনেকটাই পিছনে পড়ে যেতে হচ্ছে তাকে।

অভিযোগ রয়েছে হাসপাতালের জেনারেটর মেরামত বাবদ তিনি মোটা অংকের অর্থ সরকারি খাতায় দেখিয়ে নিজের পকেটে নিয়ে খাতা কলম সেরেছেন। শুধু তাই নয় হাসপাতালের ভেতরের সকল মৌসুমি ফল টেন্ডার ছাড়া তিনি ৪০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন। গত ২৫ আগষ্ট ১০ বস্তা চালতা বিক্রি করেন।

এ বিষয়ে ডা. আসাদুজ্জামানকে প্রশ্ন করলে বলেন, আমি কিছু জানিনা, ছোটখাটো বিষয় দেখার মতো সময় আমার নাই।

এছাড়াও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান কর্মকর্তা ডা. আসাদুজ্জামানের সরকারি গাড়িতে করে দামি দামি ঔষধ পাচারের অভিযোগ পাওয়া যায়।

এই বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আসাদুজ্জামানের কাছ থেকে জানতে চাইলে বিষয়গুলো অস্বীকার করেন।

স/এমএস