বিবেকের আয়নায়

পার্থ ঘোষ

নিউজ রাজশাহী.কম

প্রকাশিত : ০৫:০৯ পিএম, ১৯ জুন ২০২১ শনিবার

এইতো সেদিন! সন্ধ্যার পর আমি, সেবক আর জয়ন্ত নীলক্ষেত থেকে টিএসসির উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ করতেই “মানবতার বেদনাদায়ক” চিত্রের সম্মুখীন হয়েছি। রাস্তায় বসে আশ্রয়হীন সুবিধাবঞ্চিত শিশুর লেখা-পড়ার দৃশ্য অবলোকন করে। অনেক পথচারী হেঁটে যাচ্ছেন, আমরা কিছু সময় শিশুটির লেখা-পড়া পর্যবেক্ষণ করলাম।

আমরা প্রায়ই লক্ষ্য করি, আধুনিক সমাজের সুযোগ-সুবিধা পেয়ে বেড়ে উঠা অধিকাংশ শিশু সর্বদা মোবাইল ফোনে খেলা নিয়ে লেখা-পড়ার চেয়ে বেশী ব্যস্ত থাকে। বিপরীত চিত্র লক্ষ্য করলাম এই শিশুটির ক্ষেত্রে আমরা যখন শিশুটির সাথে কথা বললাম তখন অনেক মাসুষেরই জটলা তৈরী হল শিশুটিকে কেন্দ্র করে। বর্তমান বাস্তবতার বিরল দৃশ্য “যেখানে ছেলে-মেয়েদের পড়ার টেবিলে জোর করে বসাতে হয়, সেখানে সুবিধাবঞ্চিত এই বালক নিজ চেষ্টায় ল্যাম্প পোস্টের আলোয় পাঠ্য বই পড়ছে।”

ভারতের বিখ্যাত শিল্পী ভূপেন হাজারিকার কালজয়ী সেই গান মনে পড়ে যায় “মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য...।” ঘটনায় বর্ণিত পথশিশুর নাম আলিফ আহমেদ। দেশের বাড়ী গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া উপজেলায়।

আলিফের পিতা মৃত! মা জীবিত আছেন এবং থাকেন দেশের বাড়িতে। আলিফের সাথে কথা বলে জানা যায় যে, আলিফ রাজধানীর গাবতলী বাস টার্মিনালের পার্শ্বের “তাঁবু ভিত্তিক শিশু সহায়তা কেন্দ্রে”র একজন নিয়মিত ছাত্র ছিল। পরবর্তীতে কমলাপুরে অন্য একটি শিশু প্রতিষ্ঠানে পুনরায় লেখা-পড়া শুরু করে কিন্তু বিধিবাম।

যেখানে অন্ন, বস্ত্র আর বাসস্থানেরই নিশ্চয়তা নাই, সেখানে শিক্ষা আরো পরের বিষয়।

আলিফের সাথে আলাপের শেষ পর্যায়ে একজন শিক্ষিকার নাম আলিফ বলেছে “মাকসুদা ম্যাডাম” (গাবতলী তাঁবু ভিত্তিক শিশু সহায়তা কেন্দ্রে কর্মরত)। সম্ভবত এই ম্যাডামই আলিফের এই শহরে সবচেয়ে চেনা-জানা মানুষ। অত্যন্ত দুঃখের বিষয় আলিফের সাথে যোগাযোগ স্থাপন অথবা সহযোগিতার জন্য কোন নির্দিষ্ট ঠিকানা বা মোবাইল নম্বর পাওয়া যায়নি।

উপস্থিত অনেক ব্যক্তি-বর্গই সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেছেন যেটা দেশ ও সমাজের জন্য ইতিবাচক।

জনৈক ভদ্রলোক স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরের মাধ্যমে আলিফকে স্কুলে ভর্তির আশ্বাস দিয়েছেন, অনেকেই নগদ আর্থিক সহযোগিতা করেছেন, আবার কেউ কেউ ভবিষ্যতে নানা রকম সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন। বিত্ত-চিত্তের বাহান্ন বাজার তিপ্পান্ন গলির ঢাকায় “আলিফের এই ছবির আবেদন কি আদতে পৌঁছাবে যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকটে?”

লেখক: ফ্রিল্যান্স লেখক
ধানমন্ডি, ঢাকা।
G-mail- [email protected]