রাজশাহীতে লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে বেড়েছে মানুষের চলাচল

নিজস্ব প্রতিবেদক

নিউজরাজশাহী.কম

প্রকাশিত : ০৪:৫১ পিএম, ১৫ এপ্রিল ২০২১ বৃহস্পতিবার

করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে সর্বাত্মক লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে রাজশাহীর চিত্র অনেকটাই বদলে গেছে। প্রথমদিন বুধবার রাস্তাঘাটে মানুষের সমাগম কম থাকলেও বৃহস্পতিবারের চিত্র অনেকটাই ভিন্ন। প্রথমদিনের তুলনায় দ্বিতীয় দিনে রাস্তাঘাটে মানুষের সমাগম বেশি। তবে এর মধ্যেও ছিল পুলিশের জবাবদিহিতা এবং গাড়ির সংকট। এতে অতি প্রয়োজনীয় কাজে যারা বের হয়েছেন তাদের পড়তে হয়েছে ভোগান্তিতে।

এদিনও জরুরি সেবা, ওষুধ এবং মুদি দোকান ছাড়া সব ধরনের দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। রাস্তায় রিকশা, মোটরসাইকেল এবং জরুরি সেবার গাড়ি চলাচল করতে দেখা গেছে। রাস্তার বিভিন্ন মোড়ে পুলিশের চেকপোস্ট বসানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকেও বুধবারের তুলনায় রাস্তায় মানুষের যাতায়াত ছিল বেশি। প্রশাসনের কর্মকর্তারা বলছেন, মানুষকে লকডাউনের সব বিধিনিষেধ মানাতে কঠোর অবস্থানে রয়েছে প্রশাসনের কর্মকর্তারা। 

হারুনুর রশীদ নামে এক পথচারী বলেন, ওষুধ কোম্পানির চাকরি করি তাই কাজে বের হতে হয়েছে। লকডাউন কঠোর হচ্ছে। পুলিশ বিভিন্ন জায়গায় চেকপোস্ট বসিয়ে জবাবদিহি করছে।

 

মিজানুর রহমান নামের একজন লক্ষ্মীপুর থেকে আলুপট্টি এসেছিলেন অটোরিকশায় করে। তিনি বলেন, ব্যাংকে কাজে এসেছিলাম। আসার পথে অটোরিকশা পাওয়া যাচ্ছিলো না। অনেক কষ্টে আলুপট্টি এসেছি।

অটোরিকশা চালক হৃদয় খান বলেন, পেটের দায়ে রাস্তায় গাড়ি নিয়ে বের হয়েছি। পুলিশ গাড়ি চালাতে দিচ্ছে না। পুলিশকে ফাঁকি দিয়ে দু-একটা যাত্রী উঠালেও তারা অনেক সময় গাড়ি থেকে যাত্রী নামিয়ে দিচ্ছে।

 

রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, অযথা মানুষের চলাচল বন্ধে এবং লকডাউন বাস্তবায়নে নগরীর চারটি প্রবেশমুখে চারটি চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। এছাড়াও ২৫টি টহল দল সিটি করপোরেশন এলাকায় নিয়মিত টহল দিচ্ছে। তারা মানুষকে সচেতনের পাশাপাশি অযথা গাড়ি নিয়ে বের হলে মামলাও দিচ্ছে।

এ বিষয়ে মেট্রোপলিটন পুলিশের মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, গতকালের তুলনায় আজ মুভমেন্ট পাস নিয়ে মানুষ বেশি বের হচ্ছেন। সেজন্য রাস্তাঘাটে মানুষ বেশি দেখা যাচ্ছে। তাছাড়া যারা অতি জরুরি কাজে বের হচ্ছেন তাদের জন্য কিছুটা কড়াকড়ি শিথিল করা হয়েছে। পুলিশ লকডাউন কার্যকর করতে সর্বোচ্চ অবস্থানে রয়েছে।

জেলার অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট আবু আসলাম বলেন, লকডাউনের সব বিধিনিষেধ মানাতে জেলা প্রশাসন কঠোর অবস্থানে রয়েছে। আমরা মানুষকে সচেতন করছি। নির্দেশনা না মানলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জরিমানাও করা হচ্ছে।